মহামেডান ক্লাবের নবরূপে সজ্জিত তাঁবুর উদ্বোধন

সেখ সালমান (নিজস্ব প্রতিনিধি, কোলকাতা থেকে):
প্রথমে তিন প্রধানেই দাপটের সঙ্গে খেলা সদ্য প্রয়াত হাবিব প্রসঙ্গে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বলেন, ‘শ্রদ্ধা জানাই মহম্মদ হাবিবকে। বাংলাকে অনেক দিয়েছেন। দেশকে অনেক দিয়েছেন।’

তিন প্রধানকে ছাড়া ভারতীয় ফুটবল অসম্পূর্ণ। ময়দানে এ দিন আরও একটা গর্বের দিন। ময়দানের ইতিহাসে প্রথম দ্বিতল তাঁবু নির্মাণ করেছে মহমেডান স্পোর্টিং ক্লাব। লর্ডসের আদলে তৈরি করা হয়েছে ব্যালকনি। গত কাল ১৬-ই আগস্ট ২০২৩ মহমেডান স্পোর্টিংয়ের নবনির্মিত এই তাঁবুর উদ্বোধন হল মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় হাত ধরে। উপস্থিত ছিলেন বাংলা ফুটবলের দিকপাল মোহামেডান ও বাকি দুই ক্লাব মোহনবাগান ও ইস্ট বেঙ্গলের শীর্ষকর্তারাও। মুখ্যমন্ত্রীকে সাদা-কালো উত্তরীয় পরিয়ে স্বাগত জানান মহমেডান কর্তারা। একই সঙ্গে দেওয়া হল ফুটবলের স্মারক। তবে আরও একটা উপহার রাখা হয়েছিল মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের জন্য। তাঁর হাতে তুলে দেওয়া হয় ‘দিদি’ লেখা সাদা কালো জার্সি। মহমেডান স্পোর্টিংয়ের তাঁবু উদ্বোধনে এসে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় তিনি নানা প্রতিশ্রুতি দেন।

মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় চান মোহনবাগান, ইস্টবেঙ্গলের মতো ইন্ডিয়ান সুপার লিগে (ISL) খেলুক মহমেডান স্পোর্টিংও। মুখ্যমন্ত্রী বলেন, ‘কিছু করতে পারার জন্য মনে জেদ থাকা দরকার। ইস্টবেঙ্গল, মোহনবাগান আইএসএল খেলছে। মহমেডান কেন খেলবে না? সমর্থকদের টাকাতেও আইএসএল খেলা যায়। আমি নিজেও কন্ট্রিবিউট করি। বই লিখে যা পাই সেখান থেকে। আইএসএল খেলতেই হবে মহমেডানকে। আইএসএলে খেলা হবে। এত সমর্থক। ১টাকা করে চাঁদা দিলেই হয়ে যাবে।

মহমেডান স্পোর্টিংয়ের গ্যালারি সংস্কারের জন্য বড় অঙ্কের অনুদানও ঘোষণা করেন। মুখ্যমন্ত্রী বলেন, ‘সাড়ে সাত কোটি টাকা খরচ করেছি মহমেডানের ক্লাব তাঁবু উন্নতিতে। গ্যালারি সংস্কারের জন্য ৬০ লাখ টাকা দেব। ইস্টবেঙ্গল, মোহনবাগানের মতো এই গ্যালারিতেও বাকেট সিট দেখতে চাই।’ এ বার শান-ই-মহমেডান সম্মান দেওয়া হল প্রাক্তন ভারতীয় অধিনায়ক ভাস্কর গাঙ্গুলি(গোলরক্ষক) এবং আসলাম পারভেজকে। সম্মান তুলে দেন মুখ্যমন্ত্রী। গ্যালারিতে থাকা মহমেডান সমর্থকদের ফুটবলও ছুড়ে দেন মুখ্যমন্ত্রী। সাদা-কালো শিবির সব মিলিয়ে আজ রঙিন হয়ে ওঠে।

উপস্থিত ছিলেন আমাদের প্রাণের শহর কোলকাতার সম্মানীয় মেয়র ফিরহাদ হাকিম মহাশয়, উপস্থিত ছিলেন রাজ্যের মাননীয় ক্রীড়া মন্ত্রী শ্রী অরূপ বিশ্বাস , উপস্থিত ছিলেন রাজ্যের মাননীয় ফায়ার এবং ইমার্জেন্সি সার্ভিস মন্ত্রী শ্রী সুজিত বসু, উপস্থিত ছিলেন রাজ্যের ক্রীড়া ও যুব বিষয়ক প্রতিমন্ত্রী মনোজ তিওয়ারি এবং আরও বিশিষ্টজনরা।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

x