চির চেনা রুপে দীর্ঘ যানজটের কবলে আবারও সাতক্ষীরা ভোমরা স্থলবন্দর

জিয়াউর রহমান, সাতক্ষীরা:
চির চেনা রুপে দীর্ঘ যানজটের কবলে আবারও সাতক্ষীরা ভোমরা স্থলবন্দর, জনদূর্ভোগ চরমে। প্রতিনিয়ত ভোমরা স্থল বন্দর এলাকায় প্রায় ১ কিলোমিটার জুড়ে দীর্ঘ যানজট দেখা দিয়েছে। বুধবার (৩০ জুন) বেলা সাড়ে ১২টায় সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, যানজটে সীমাহীন ভোগান্তীতে পড়েছে পথচারী, ব্যবসায়ী ও এলাকাবাসী। শান্ত ভোমরা স্থলবন্দর আবারও অশান্ত হয়ে উঠেছে। ভোমরা স্থলবন্দর যানজট নিরসন কমিটির কার্যক্রমবন্ধকারী কুচক্রী মহলের বিরুদ্ধে ফুসে উঠেছে এলাকাবাসী ও ব্যবসায়ী মহল।
এব্যাপারে ভারতীয় ডব্লুবি ২৫০২৯৭৬ এর ট্রাক ড্রাইভার নিলয় শর্মা, ডব্লুৃবি ২৯০২০৫৪ এর ট্রাক ড্রাইভার আব্দুল কাদের ও বাংলাদেশী যশোর-ট ১১-৪২৬০ এর ট্রাক ড্রাইভার শেখ শহিদুল ইসলাম, ট্রাক ড্রাইভার আব্দুল হাকিম, মো. হারুন, ইউছুফ আলী, হামিদুল ও ট্রাক ড্রাইভার আব্দুল আজিজ জানান, আমরা কিছুদিন আগেও খুব শান্তিতে ছিলাম। কোন যানজট ছিলনা। এখন দীর্ঘ যানজটে কষ্টের মধ্যে আছি। গাংনিয়া ব্রিজের পাশে চাঁদা আদায়কারীদের অত্যাচারে আমরা অতিষ্ঠ। নির্দিষ্ট সময়ে লোড আনলোড করতে পারছিনা। যেকারণে অনেক সমস্যা হচ্ছে। আগে ট্রাকের কোন ক্ষয়-ক্ষতি হতোনা। যানজট নিরসন কমিটির নতুন পার্কিং স্পটে ট্রাক রাখতাম। সময় মতো বের হয়ে মালামাল লোড-আনলোড করতায়। আমরা এ ভোগান্তী ও হয়রানী থেকে মুক্তি চাই।
বিশিষ্ট শ্রমিক নেতা ও ভোমরা ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক আনারুল ইসলাম গাজী ও বাংলাদেশ স্থলবন্দর শ্রমিক ফেডারেশন ভোমরা স্থলবন্দর শাখার সাধারণ সম্পাদক আজিবুর রহমান আলিমসহ স্থানীয় শ্রমিক সংগঠনের নেতৃবৃন্দরা বলেন, যানজটের কারণে এবং যানজটকে কাজে লাগিয়ে একটি সুবিধাবাদী মহল তাদের অবৈধ কর্মকান্ড অনেক সহজেই করতে পারছে। কিছুদিন আগেও এ যানজট ছিলনা। ভোমরা বন্দর কর্তৃপক্ষ, ব্যবসায়ী ও স্থানীয় শ্রমিক সংগঠনগুলি এক সাথে বন্দরের প্রধান সমস্যা যানজট নিরসনকল্পে দীর্ঘ আলোচনার মাধ্যমে ভোমরা স্থলবন্দর যানজট নিরসন কমিটি গঠন করে। সেই কমিটি পবিত্র রমজান মাস থেকে ৪০জন সদস্যকে নিয়ে বন্দর কর্তৃপক্ষের অনুমতিক্রমে পার্কিং ব্যবস্থা করে নিরলসভাবে পরিশ্রম করে ভোমরা স্থলবন্দরকে যানজট মুক্ত করেছিল। তাতে একটি অবৈধ সুবিধাভোগি কুচক্রী মহলের চক্রান্তে গত ২৭ জুন জামাতের অর্থদাতা জেলা ট্রাক মালিক সমিতির সাধারণ সম্পাদক রফিকুল ইসলামের নির্দেশে ভিআইপি ট্রাক শ্রমিক ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক শেখ সাহাঙ্গীর হোসেন শাহীন ও নারিকেলতলা ট্রাক শ্রমিক ইউনিয়নের সভাপতি বিএনপির দোষর আব্দুল কাদের কাদু’র হস্তক্ষেপে পেশিশক্তি কাজে লাগিয়ে ভোমরা স্থলবন্দর যানজট নিরসন কমিটির কার্যক্রম সম্পুনśরুপে বন্ধ করে দেয়। যার ফলে আবারও ভোমরা স্থলবন্দরে দীর্ঘ যানজট দেখা দিয়েছে। অপরদিকে ষড়যন্ত্রকারী ঐ কুচক্রী মহল ভোমরার গাংনিয়া ব্রিজের পাশে জোর পূর্বক এখনও অবৈধভাবে ট্রাক থামিয়ে চাঁদা আদায় করে যাচ্ছে।
ভোমরা’র একটি সূত্র জানায়, ভারতীয় ট্রাক ড্রাইভার ও হেলপাররা আগে যানজট নিরসন কমিটির তত্বাবধানে ও নিয়ন্ত্রনে থাকতো। যানজট নিরসন কমিটির কার্যক্রম বন্ধ হওয়ায় এখন তারা ভোমরা থেকে সাতক্ষীরা শহরে গিয়ে ঘুরে বেড়ায়। তাদের কারণে ভারতীয় ডেল্টা ভেরিয়েন্ট করোনা ভাইরাস সাতক্ষীরায় দ্রুত বেশি বেশি ছড়িয়ে পড়ছে বলে অনেকে আশংকা করছে।
পথচারী আবু ছালেক, কবির হোসেন, আনোয়ার, জামিনুর ও স্থানীয় দোকানদার মিজান, সাইফুল, মাইনুর এ প্রতিনিধিকে জানায়, যানজট নিরসন কমিটির কার্যক্রম বন্ধ হওয়ায় খুব যানজট দেখা দিয়েছে। এই কিছুদিন আগেও ভোমরা স্থলবন্দর এলাকায় কোন যানজট ছিলনা।
একটি মহলের কারণে আবারও ভোমরা স্থলবন্দরে দীর্ঘ যানজট দেখা দিয়েছে। পথচারী, ব্যবসায়ী ও এলাকাবাসীর দাবী আবারও ভোমরা স্থলবন্দরে যানজট নিরসনে প্রশাসনসহ সংশ্লিষ্টদের আশু হস্তক্ষেপ কামনা করেছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

x