সুইডেনকে কাঁদিয়ে কোয়ার্টার ফাইনালে ইউক্রেন

মাঠে ময়দানে ডেস্ক:
ইউরো চ্যাম্পিয়নশিপে প্রথমবার নকআউটে উঠে ইতিহাস গড়লো ইউক্রেন। মঙ্গলবার গ্লাসগোর হ্যাম্পডেন পার্কে অতিরিক্ত সময়ের খেলায় জিতে কোয়ার্টার ফাইনাল নিশ্চিত করে তারা।
ম্যাচের শুরুর দিকে দুই দলেরই ছিলো চোখে পড়ার মতো গোল প্রচেষ্টা। তবে ম্যাচ ঘড়ির কাঁটা আধঘণ্টায় না যেতেই স্কোরে আসে পরিবর্তন। ২৭ মিনিটে ডান দিক থেকে ইয়ারমোলেঙ্কোর চতুর ক্রস, প্রতিপক্ষ ডিফেন্ডারদের নজর এড়িয়ে বক্সে ঢুকেই লাফানো বলে বাঁ পায়ের শট নেন ওলাক্সান্ডার জিনচেঙ্কো। শট এতটাই শক্তিশালী ‍ছিল যে, ওলসেনের বাঁ হাতে লাগলেও জালে জড়ায় বল। ২৪ বছর বয়সে গোল করে ইউরোতে দেশের সর্বকনিষ্ঠ গোলদাতা হলেন জিনচেঙ্কো।
বিরতির আগেই সমতা ফেরায় সুইডেন। এমিল ফর্সবার্গের ৩০ গজ দূর থেকে নেওয়া শট ইউক্রেন খেলোয়াড় জাবারনির গোড়ালিতে লেগে জালে জড়ায়।
দ্বিতীয়ার্ধের শুরুতে দুই দলের শটই আঘাত করে গোলপোস্টে। তবে ১-১ গোলে শেষ হয় নির্ধারিত সময়ের খেলা। অতিরিক্ত সময়ের শুরুতে বড় ধাক্কা খায় সুইডেন।
৯৮ মিনিটে বল বিপদমুক্ত করতে গিয়ে ভেসেডিনকে ফাউল করেন ড্যানিয়েলসন। প্রথমে রেফারি হলুদ কার্ড দিলেও ভিএআর যাচাই করে লাল কার্ড দেখান। ১০ জনের দল নিয়ে বাকি সময় সামাল দিচ্ছিল সুইডিশরা। দ্বিতীয়ার্ধে যোগ করা হয় তিন মিনিট। ম্যাচ টাইব্রেকারে নিষ্পত্তি হওয়ার আভাস দিচ্ছিল, ঠিক তখনই অসাধারণ গোল। যোগ করা সময়ের দ্বিতীয় মিনিটে বাঁ উইং থেকে জিনচেঙ্কোর মাপা ক্রস, হেড করতে ভুল করেননি ডভবিক। জালে বল জড়াতেই জয়ের আনন্দে মেতে ওঠে ইউক্রেন।
সবশেষে ১৯৯২ সালের সেমিফাইনালিস্ট সুইডেনকে ২-১ গোলে হারিয়ে প্রথম নকআউটে জিতে গেলো ইউক্রেন। আগামী শনিবার রোমে শেষ আটে তাদের প্রতিপক্ষ ইংল্যান্ড।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

x