মাগুরায় দীর্ঘস্থায়ী রোগে আয়ুর্বেদিক ঔষুধের ভূমিকা বিষয়ে প্রশিক্ষণ

ফারুক আহমেদ, মাগুরা:
মাগুরায় ড্রিম মাশরুম সেন্টারের কনফারেন্স হল রুমে দীর্ঘস্থায়ী রোগে আয়ুর্বেদিক ঔষুধের ভূমিকা বিষয়ে প্রশিক্ষণ (Training on Role of Ayurvedic Medicine in Chronic Diseases) কর্মশালার আয়োজন করা হয়। শনিবার ২৬ জুন সকাল ১০ টার সময় ড্রিম মাশরুম সেন্টার বড়খড়ি মাগুরায় এই প্রশিক্ষণের আয়োজন করে বাংলাদেশ আয়ুর্বেদিক মেডিসিন ম্যানুফ্যাকচারার্স এসোসিয়েশন (BAMMA)। প্রশিক্ষণ কর্মশালায় সভাপতিত্ব করেন সভাপতি বাংলাদেশ (বামা) শিবব্রত রায় এবং উদ্বোধক ছিলেন (সাবেক সচিব ও মন্ত্রী) সিনিয়র সহ-সভাপতি বাম, এ.বি.এম গোলাম মোস্তফা। দীর্ঘস্থায়ী রোগ প্রশিক্ষণে প্রধান অতিথি ছিলেন চেয়ারম্যান জেলা পরিষদ মাগুরা বাবু পঙ্কজ কুমার কুন্ডু, উপস্থাপক সহযোগী অধ্যাপক হামদর্দ বিশ্ববিদ্যালয় বাংলাদেশ ডাঃ বাবুল আক্তার, আলোচক ছিলেন বিভাগীয় প্রধান বামা কেন্দ্রীয় নির্বাহী কমিটি আকরাম হোসেন, নির্বাহী সদস্য বামা কেন্দ্রীয় নিবাহী কমিটি এ.বি.এম জাহাঙ্গীর, প্রতিষ্ঠাতা অধ্যক্ষ প্রফুল্ল রঞ্জন সিংহ আয়ুর্বেদিক কলেজ মাগুরা তপন কুমার বসু, ব্যবস্থাপনা পরিচালক ড্রিম মাশরুম সেন্টার ও ডি.এম.সি ল্যাবরেটরীজ মোঃ বাবুল আখতার, স্বাগতবক্তা সাধারণ সম্পাদক বাংলাদেশ আয়ুর্বেদিক মেডিসিন ম্যানুফ্যাকচারার্স এসোসিয়েশন (বামা) ডাঃ মোঃ মিজানুর রহমান। প্রশিক্ষণে উপস্থিত ছিলেন (ভারপ্রাপ্ত) অধ্যক্ষ প্রফুল্ল সিংহ আয়ুর্বেদিক মেডিকেল কলেজ মাগুরা কবিরাজ মোঃ বাবুল হোসেন, মাগুরা জেলার কবিরাজবৃন্দ এবং সাংবাদিকগণ। প্রশিক্ষণের সার্বিক সহযোগিতায় মেডিসিনাল প্লান্টস এন্ড হারবাল প্রোডাক্টস বিজনেস প্রমোশন কাউন্সিল (MPHPBPC)। অধ্যক্ষ কবিরাজ তপন কুমার বসু বলেন, আয়ুর্বেদিক চিকিৎসা জ্ঞান হলো মহাসমুদ্রের মতো বিস্তার, যেখানে ৩ হাজার বছর পূর্বে চরক সংহিতায় করোনা ভাইরাস রোগের ভবিষ্যতে আর্বিভাবের কথা ৮ টা স্থানের বিমান অংশ স্থানে ৩য় অধ্যায়ে ১২-১৬ নম্বর শ্লোকে উল্লেখ আছে। প্রধান অতিথি জেলা চেয়ারম্যান বাবু পঙ্কজ কুমার কুন্ডু বলেন, আয়ুর্বেদিক ও ইউনানি চিকিৎসায় মাগুরার গর্ব ও কৃতি সন্তান ডাঃ মিজানুর রহমানের ভুয়সী প্রশংসা করেন। মাশরুম বাবুল মাগুরায় ইউনানি ঔষধ কারখানা উৎপাদন করেছে এটা মাগুরাবাসীর জন্য বিরাট অবদান। তিনি বলেন আমি নিজে ৫০ বছর পূর্বে শুনেছি বাবা-দাদুর কাছে আয়ুর্বেদিক চিকিৎসার গুণের কথা এবং তখন রোগ হলে কবিরাজ লতাপাতা ও গাছের মাধ্যমে রোগের চিকিৎসা দিয়ে রোগীকে দ্রুত সুস্থ করে দিতেন। তিনি আরও বলেন মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আয়ুর্বেদিক ও ইউনানি চিকিৎসার খাতকে সারা দেশে ব্যাপক ভাবে উন্নয়ন ও ঔষধ উৎপাদনে আগামী দিন নিরলস ভাবে কাজ করে যাচ্ছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

x