বিশ্ববিদ্যালয়ের গবেষণার ফলাফল দেশ ও জাতির কাক্সিক্ষত উন্নয়নে ভূমিকা রাখতে পারে : উপাচার্য

বিজ্ঞপ্তি :
বুধবার সকাল সাড়ে ১০টায় খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ের নবনিযুক্ত উপাচার্য প্রফেসর ড. মাহমুদ হোসেনকে তাঁর কার্যালয়ে ফুলেল শুভেচ্ছা জানান বৃহত্তর খুলনা উন্নয়ন সংগ্রাম সমন্বয় কমিটির নেতৃবৃন্দ। সংগঠনের সভাপতি শেখ আশরাফ উজ জামানের নেতৃত্বে উন্নয়ন কমিটির নেতৃবৃন্দ নবনিযুক্ত উপাচার্যকে আন্তরিক অভিনন্দন জানিয়ে খুলনা বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিষ্ঠার আন্দোলন থেকে শুরু করে এ পর্যন্ত তাদের ভূমিকা তুলে ধরেন এবং এ বিশ্ববিদ্যালয়ের উন্নয়নে তাদের পক্ষ থেকে সর্বত সহযোগিতা অব্যাহত রাখার কথা ব্যক্ত করেন। নতুন উপাচার্যের নেতৃত্বে এ বিশ্ববিদ্যালয় দ্রুত সমৃদ্ধির লক্ষ্যে এগিয়ে যাবে এবং বিশ্বমানের বিশ্ববিদ্যালয়ের রূপপরিগ্রহ করবে বলে তারা আশা প্রকাশ করেন। একই সাথে খুলনা অঞ্চলের উন্নয়নে গবেষণার মাধ্যমে আরও নতুন দিকনির্দেশনা দিতে পারবে বলে প্রত্যাশা ব্যক্ত করেন। অপরদিকে সকাল ১১টায় বঙ্গবন্ধু পরিষদ খুলনার সাধারণ সম্পাদক ও বিভাগীয় চেয়ারম্যান গাজী লিয়াকত হোসেনের নেতৃত্বে সংগঠনের পক্ষ থেকে নবনিযুক্ত উপাচার্যকে ফুল দিয়ে শুভেচ্ছা জানানো হয়। এসময় নেতৃবৃন্দ অনুরূপভাবে খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ের উন্নয়নে তাদের সর্বাত্মক সহযোগিতার কথা ব্যক্ত করেন।
উপাচার্য উভয় সংগঠনকে তাঁর নিজের এবং বিশ্ববিদ্যালয়ের পক্ষ থেকে আন্তরিক ধন্যবাদ জানিয়ে বলেন, খুলনা বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিষ্ঠার আন্দোলন থেকে শুরু করে এ পর্যন্ত স্থানীয় রাজনৈতিক, অরাজনৈতিক, সামাজিক সংগঠনসহ আপামর মানুষ এ বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রতি অভূতপূর্ব সহযোগিতা ও ভূমিকা পালন করে আসছে। তিনি এজন্য গভীর কৃতজ্ঞতা জ্ঞাপন করেন। উপাচার্য ভবিষ্যতেও তাদের সহযোগিতা কামনা করেন এবং সম্মিলিত প্রচেষ্টায় খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়কে উৎকর্ষের জায়গায় এগিয়ে নিয়ে আন্তর্জাতিক ক্ষেত্রে একটি সবিশেষ অবস্থান তৈরির অভিলক্ষ্য ব্যক্ত করেন। তিনি বলেন, বিশ্ববিদ্যালয়ের মতো একটি প্রতিষ্ঠানের সমৃদ্ধির জন্য শিল্প, প্রতিষ্ঠান, সংগঠন, ব্যক্তির ভূমিকা ও অবদান রাখার সুযোগ রয়েছে। স্কলারশিপ, ট্রাস্ট, অবকাঠামো নির্মাণ, গবেষণাসহ বিভিন্ন ক্ষেত্রে উন্নত বিশ্বের মতো ভূমিকা পালন করে বিশ্ববিদ্যালয়কে এগিয়ে নেওয়া যায়। তিনি বলেন, শিক্ষার পাশাপাশি বিশ্ববিদ্যালয়ের মুখ্য উদ্দেশ্য হলো গবেষণা। আমরা গবেষণার উপর সবিশেষ গুরুত্বারোপ করছি এবং উপকূলীয় অঞ্চলের সমস্যা নিয়ে আরও গবেষণার উদ্যোগ গ্রহণ করা হবে। তিনি আরও বলেন, বিশ্ববিদ্যালয় থেকেই প্রাপ্ত গবেষণার ফলাফল ও দিকনির্দেশনা একটি দেশ, জাতি, সমাজ ও এলাকার কাক্সিক্ষত উন্নয়নে ভূমিকা রাখতে পারে।
এসময় উন্নয়ন কমিটির পক্ষে আরও উপস্থিত ছিলেন মহাসচিব শেখ মোহাম্মদ আলী, মোঃ নিজাম উর রহমান লালু, মিনা আজিজুর রহমান, মনিরুজ্জামান রহিম, মিজানুর রহমান জিয়া, মিজানুর রহমান বাবু, চৌধুরী মোঃ রায়হান ফরিদ, শেখ মুজিবুর রহমান, হাওলাদার আলমগীর হাদী, প্রমিতি দফাদার প্রমুখ। বঙ্গবন্ধু পরিষদ খুলনার পক্ষে আরও উপস্থিত ছিলেন সহ-সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা মুন্সি হেকমত আলী, যুগ্ম সম্পাদক মোঃ আসলাম শেখ, ডাঃ মোঃ আলমগীর হোসেন, সহ-সাধারণ সম্পাদক হাওলাদার আলমগীর হাদী, মোঃ জহির উদ্দিন, সম্পাদকমন্ডলীর সদস্য মোঃ মাহমুদুর রহমান রাজা, মাছুম হুদা বাপ্পী, মোঃ আরিফ নেওয়াজ, কাজী আব্দুল ওয়াহাব, বঙ্গবন্ধু কর্মকর্তা পরিষদ খুলনা বিশ্ববিদ্যালয় শাখার সভাপতি মোঃ তারিকুজ্জামান লিপন, সাধারণ সম্পাদক মোঃ রফিকুল ইসলাম বাবু, সহ-সভাপতি এস এম আতিয়ার রহমান, স্বাস্থ্য বিষয়ক সম্পাদক ডাঃ গৌতম রায়।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

x