নিরাপদ পানি ব‍্যবস্থায় এমপি সালাম মূর্শেদী’র প্রতিশ্রুতির শতভাগ বাস্তবায়ন দৃশ‍্যমান

রূপসা প্রতিনিধিঃ বিশুদ্ধ পানি সব ধরনের মানবাধিকারের ভিত্তি হিসেবে স্বীকৃত ।সবার জন্য উন্নত উৎসের পানি নিশ্চিত করার ক্ষেত্রে বাংলাদেশ অনেক এগিয়ে গেছে। ৯৭ শতাংশের বেশি মানুষের উন্নত উৎসের পানি পাওয়ার সুযোগ আছে,জানাযায়২০১৩ সালের একটি জরিপে।
তবে পুরোপুরি নিরাপদ পানি পানের সুযোগ এখনও সীমিত।
বিশ্বে সবচেয়ে বেশি আর্সেনিক দূষণ আক্রান্ত মানুষের বসবাস বাংলাদেশে।
এছাড়া পানিতে ম্যাঙ্গানিজ, ক্লোরাইড ও লৌহ দূষণের কারণেও খাওয়ার পানির মান খারাপ থাকে।
বাংলাদেশের এক তৃতীয়াংশ পানির উৎসে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার নির্ধারিত মানের চেয়ে বেশি মাত্রায় ম্যাঙ্গানিজের উপস্থিতি পাওয়া যায়।
মলের জীবাণু রয়েছে এমন উৎসের পানি পান করছে ৪১ শতাংশের বেশি মানুষ। এক্ষেত্রে স্বল্প শিক্ষিত নগরবাসী সবচেয়ে বেশি ঝুঁকিতে রয়েছে বলে ২০১৩ সালের জরিপে বলা হয়েছে।
শহরাঞ্চলের এসব পরিবারে যে পানি খাওয়া হয় তার এক তৃতীয়াংশেই উচ্চমাত্রার ই-কোলাই ব্যাক্টেরিয়া থাকে, যা ডায়রিয়ার অন্যতম কারণ।
জরিপের তথ‍্য মতে প্রতি পাঁচটি পরিবারের মধ্যে দুটি, অর্থাৎ বাংলাদেশের ৩৮ দশমিক ৩ শতাংশ মানুষ রোগ সৃষ্টিকারী ভাইরাস-ব্যাক্টেরিয়া দূষিত উৎসের পানি পান করে। আবার ঘরের কল বা টিউব-ওয়েলের আশপাশ পরিষ্কার না থাকায় বিভিন্ন অণুজীবযুক্ত পানি পানকারীর সংখ্যা অনেক।
তাই মানুষের সুস্বাস্থ্য বজায় রাখতে নিরাপদ পানির ব‍্যবস্থা নিশ্চিত করা জরুরী।সেহেতু খুলনা -৪ এর সাংসদ আব্দুস সালাম মূর্শেদী তার নির্বাচনী এলাকা রূপসা, তেরখাদা ও দিঘলিয়ার জনগণের সুরক্ষায় সর্বাপেক্ষা গুরুত্ব দিয়েছেন নিরাপদ পানির উপর। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার আস্থা ও প্রিয়ভাজন এই প্রভাবশালী এমপি মানব সেবার ব্রত নিয়ে তার ঐকান্তিক প্রচেষ্টা আর দক্ষ নেতৃত্বে স্পেশাল বরাদ্দের মাধ‍্যমে নিরাপদ পানির সংকলণ ও স‍্যানিটেশন
ব‍্যবস্থায় আমূল পরির্বতন এনেছেন রূপসা,তেরখাদা ও দিঘলিয়ার জনসাধারণেল জন‍্য। জনস্বাস্থ‍্য প্রকৌশলী অধিদপ্তরের বাস্তবায়রনের মাধ্যমে নানাবিধ প্রকল্পের দ্বারা নির্বাচনী অঙ্গিকার আজ শতভাগ দৃশ‍্যমান।এই তিন উপজেলায়(রূপসা,তেরখাদা ও দিঘলিয়া) ২ হাজার ৫ শতটি গভীর নলকূপ,রেইন ওয়াটার হারভেষ্টিং ১ হাজার ১ শতটি ও কমিন‍্যুিটি ল‍্যাট্রিন ৩০টি স্থাপনের কাজ সম্পন্ন হচ্ছে।
রূপসা কলেজ সংলগ্ন স্থাপিত ওয়াটার প্ল‍্যান্টের পাইপ লাইনের মাধ‍্যমে ১০ কিঃ মিটারের মধ‍্যে বসবাসকারী মানুষের জন‍্য বিশূদ্ধ পানি সরবরাহ করা হচ্ছে। পাশাপাশি এ সকল এলাকার ১ শতাধিক পুকুর পুনঃখননেরও কাজ তড়িৎ গতিতে চলছে।যারদরুন বিগত ৪মাস ধরে অনাবৃষ্টি ও অতি খরায় দেশের মানুষ যখন অতিষ্ঠ তখন এ অঞ্চলের মানুষ স্বস্তির নিঃশ্বাস ছেড়েছে।এছাড়াও খুলনা জেলাধীন রূপসা,তেরখাদা ও দিঘলিয়া উপজেলার নিরাপদ পানি ও স‍্যানিটেশন শীর্ষক প্রকল্পের আওতায় রূপসা ও তেরখাদায় প্রায় কোটি টাকা ব‍্যয়ে ১টি করে মোট ২টি রীভার অসমোসিস প্ল‍্যান্ট হাউজ (RO) স্বল্প সময়ে মধ‍্যে স্থাপন করা হবে। প্রতিটি এই প্ল‍্যানটে ঘন্টায় ৩০ লিটার পানি বিশুদ্ধ করা যাবে। গত ২৯ মে সকাল ১০টায় শ্রীফলতলা পরিষদ চত্বরে রূপসায় এ রীভার অসমোসিস প্ল‍্যান্ট হাউজের কাজের স্থান নির্ধারণ ও লে-আউট সম্পন্ন করা হয়েছে। এ সময় উপস্থিত ছিলেন শ্রীফলতলা ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান আলহাজ্ব মোঃ ইসহাক সরদার, রূপসা উপজেলা পরিষদের মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান ফারহানা আফরোজ মনা,উপজেলা আওয়ামীলীগের সংগঠনি সম্পাদক এস এম হাবীব,শ্রীফলতলা ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সভাপতি রবিউল ইসলাম বিশ্বাস, প‍্যানেল চেয়ারম্যান মোঃ কামরুল ইসলাম,মোঃ সুমন মল্লিক,মঈন বিশ্বাস,জাহিদ শেখ,রানা শেখ প্রমূখ।
এছাড়াও উপস্থিত ছিলেন খুলনা জনস্বাস্থ‍্য প্রকৌশলীর উপ- সহকারী ইঞ্জিনিয়ার মোঃ রাসেল ।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

x